1. rezaulalam000@gmail.com : সময় বাংলার :
  2. jmitsolution24@gmail.com : JM IT SOLUTION : JM IT SOLUTION
পদ্মাসেতু ট্রেন উদ্বোধনের দিন চালু নিয়ে সংশয় | সময় বাংলার
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১১:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম ... ||
আগামী ২০ জুলাই নতুন ভাষানচর জুনিয়র ফুটবল টুর্ণামেন্ট ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে শ্রীনগরে ব্র্যাকের ইউনিয়ন  কর্মশালা সময় বাংলার “অন লাইন পোর্টালে খবর প্রকাশের পর ড্রেজার উচ্ছেদ দুই লাখ টাকা জরিমানা মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলেন মুজাহিদুল ইসলাম সিরাজদিখানে বদলিজনিত বিদায় উপলক্ষে সংবর্ধনা ঢাকা-বেইজিং চুক্তি স্বাক্ষরের একটি মুন্সিগঞ্জের নাটেশ্বর আর্কিওলজিকাল সাইট পার্ক প্রকল্প শ্রীনগরে অনূর্ধ্ব-১৭ জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত রাজশাহীর বাগমারায় অনলাইন জুয়ার কালো থাবায় নিঃস্ব হচ্ছে তরুণ-যুব সমাজ জাসদ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা শফিউর রহমান শফির মুক্তি দাবী রাজশাহীতে বিক্ষোভ শ্রীনগরে যাত্রীবাহী সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নতুন শাখা উদ্ধোধন পাবনায় উপজেলা আ.লীগ সম্পাদকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার প্রতিবাদে অবরোধ বিক্ষোভ -মানববন্ধন সারা দেশে চলমান আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা শিক্ষার্থীদের শ্রীনগরে ড্রেজার দিয়ে কৃষি জমি ভরাটের মহোৎসব  সিরাজদিখানে দুই পক্ষের সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধ ৯ আহত ২০ প্রশ্নফাঁসে নিজের সংশ্লিষ্টতা থাকলে পদত্যাগ করার ঘোষণা দিয়েছেন পিএসসি চেয়ারম্যান বুধবার সারাদেশে ‘বাংলা ব্লকেড’ সিরিয়াল কিলার রসু খাঁর ফাঁসির আদেশ বহাল দুর্নীতি একটি দেশের এগিয়ে যাওয়ার পথে সবচেয়ে বড় অন্তরায় কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে শুনানি আগামীকাল প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন টঙ্গীবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা কোটা বাতিলের দাবিতে উত্তাল সারাদেশ শ্রীনগরে সনাতন ধর্মালম্বীদের মহোৎসব রথযাত্রা অনুষ্ঠিত সাংবাদিক আলামিন হোসেনের পিতার মৃত্যুতে রাসিক মেয়রের শোক প্রকাশ শ্রীনগরে সাংবাদিকের উপর হামলা ও মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদে মানববন্ধন পদ্মা সেতুর জন্য বাংলাদেশ বিশ্বে সম্মান পেয়েছে : প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করছেন ‍ঋষি সুনাক স্ট্রোক করেছেন নাফিস ইকবাল,এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে আনা হচ্ছে ঢাকায় কিয়ার স্টারমার যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে লেবার পার্টির নিরঙ্কুশ জয়

পদ্মাসেতু ট্রেন উদ্বোধনের দিন চালু নিয়ে সংশয়

  • সময় বাংলার || বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১, ৯.১৭ এএম
ছবি পদ্মা সেতু চালুর দিন ট্রেন চলাচল নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।
ছবি পদ্মা সেতু চালুর দিন ট্রেন চলাচল নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

পদ্মাসেতু উদ্বোধনের দিন ট্রেন চালু এ নিয়ে সংশয়


সময় বাংলার ডেক্স

পদ্মাসেতু প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে ৮৩ শতাংশ কাজ শেষ হয়ে গেছে। সেতুটিতে রেলপথ স্থাপন নিয়ে দেখা দিয়েছে জটিলতা। মেগা প্রকল্পের এ সেতু যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ার অন্তত ছয় মাস আগে রেললাইন স্থাপনের কাজ শুরু করতে হবে। তবে সেতুর প্রকল্প কর্তৃৃপক্ষ বলছে, সেতুর কাজ শেষ করার আগে রেললাইন স্থাপনের অনুমতি দেওয়া সম্ভব নয়। অন্যদিকে সেতু চালুর আগে সময় না পেলে ‘বেজলাইন সার্ভে’ নিয়ন্ত্রণ নিয়েও শঙ্কা থেকে যাচ্ছে। এ কারণে সরকার ঘোষিত উদ্বোধনের দিন থেকে ট্রেন চালু নিয়ে সংশয়ে আছে রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প কর্তৃপক্ষ। এদিকে আগামী বছরের জুনেই পদ্মাসেতুর নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে বলা হয়েছে সরকারের সর্বশেষ ঘোষণায়।

এর আগেও পদ্মাসেতু প্রকল্পের সঙ্গে রেল সংযোগ প্রকল্পের কার্যক্রমে বিরোধ সৃষ্টি হয়। পদ্মাসেতুর দুই প্রান্তে সংযোগ সড়ক থেকে যানবাহন ওঠার পথে রেলের ভায়াডাক্টের উচ্চতা এবং প্রশস্ততা নকশার চেয়ে কম বলে অভিযোগ করে রেল কর্তৃপক্ষের ওই অংশের কাজ বন্ধ করে দেয় সেতু কর্তৃপক্ষ। পদ্মাসেতু কর্তৃপক্ষের মতে, ভায়াডাক্ট ও পিয়ার-সংক্রান্ত বাধার কারণে কিছুটা পিছিয়ে পড়েছে। তাদের কাজ ছয় মাস বন্ধ থাকে।

পদ্মাসেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, সরকার ঘোষিত সময়ের মধ্যে পদ্মাসেতুর কাজ শেষ করার টার্গেট। এখন পর্যন্ত অগ্রগতি ৮৩ ভাগ। কবে রেললাইন স্থাপনের অনুমতি দেওয়ার সম্ভব হবে, তা এখনই বলা সম্ভব নয়। সেতুর কাজ শেষ করার আগে অন্য বিষয় নিয়ে চিন্তা করা যাবে না। কাজ শেষের ছয় মাস আগে রেলকে তাদের কাজের সুযোগ দিতে হবে, নইলে একই দিনে ট্রেন চলবে না। এ বিষয়ে আমরা মন্তব্য করতে পারব না। আমরা শুধু আমাদের অংশের কাজ দ্রুত শেষ করতে চাই।

জানা গেছে, রেলওয়ের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে- সেতুতে রেললাইন স্থাপনে ন্যূনতম ছয় মাস প্রয়োজন। তাই সেতুতে যান চলাচল শুরুর ছয় মাস আগে থেকে রেললাইন নির্মাণের কাজ শুরু করতে হবে। সেতুতে পাথরবিহীন রেলপথ স্থাপনের কাজ শুরু করতে সেতু প্রকল্প অনাপত্তিপত্র না দিলে জটিলতা সৃষ্টি হবে। সে ক্ষেত্রে সেতু চালুর পর রেললাইন নির্মাণ করতে হবে। এতে সেতু যান চলাচলের কারণে পুঙ্খানুুভাবে লাইন স্থাপন করা যাবে না। সেতুর সড়কপথে যানবাহন শুরুর পর রেললাইন স্থাপনের কাজ করাটা ঠিক হবে না। কারণ একদিকে রেলসংযোগ প্রকল্পের কংক্রিটিং; অন্যদিকে সড়কপথে গাড়ি চলবে। এটি সেতুর রেল অংশের কাজ পুরোপুরি কাক্সিক্ষত মানের করা সম্ভব নয় বলে মনে করছে রেল কর্তৃপক্ষ।

রেল সংযোগ প্রকল্প কর্তৃপক্ষের লেখা সাম্প্রতিক চিঠিতে বলা হয়েছে- সেতু চালুর পর পাথরবিহীন রেলপথ স্থাপনের কাজ করলে ‘সার্ভে বেইস লাইন’ নিয়ন্ত্রণে জটিলতা সৃষ্টি হবে। শতভাগ সঠিকভাবে রেল অ্যালাইনমেন্ট বসানো যাবে না। সেতুতে ‘রেল ডেক’ এবং ‘সড়ক ডেক’ স্থাপনের অগ্রগতির সঙ্গে ‘সেটেলমেন্ট মনিটরিং’য়ের কাজ শুরুর বিষয়টিও জড়িত। সেতুতে রোড ডেক স্থাপনের কাজ শেষ হওয়ার পর রেল সংযোগ প্রকল্পের ঠিকাদার চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেডকে (সিআরইসি) ‘সেটেলমেন্ট মনিটরিং’ শুরুর অনুমতি দিতে হবে। উপরিভাগে সড়ক (রোড ডেক) নির্মাণকাজ সম্পূর্ণ হওয়ার পর নকশা অনুযায়ী ৯০ শতাংশ ভার সেতুর ভিত্তির ওপর পড়বে। তথা সেতুতে যেসব অংশ সংযোজন করা হয়েছে, তার ওজনের ভিত্তির ওপর পড়বে। ‘চীনা ব্রিজ ডিজাইন কোড’ অনুযায়ী ৯০ শতাংশ ভর আরোপিত হওয়ার মূল সেতুর ‘সেটেলমেন্ট মনিটরিং’ করা হবে। অর্থাৎ সংযোজিত অংশগুলোর ভারের কারণে সেতুর পিলারগুলো দেবে যাচ্ছে কিনা তা দেখা হবে। একেই বলে সেটেলমেন্ট মনিটরিং।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ৯ ডিসেম্বর শেষ স্প্যান স্থাপনের মাধ্যমে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সেতুটি পুরো কাঠামো দৃশ্যমান হয়েছে। ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা নদীতে দ্বিতল সেতু নির্মাণে কাজ চলছে। সেতুর উপরিভাগে চার লেনের সড়কে চলবে যানবাহন। নিচের তলায় চলবে ট্রেন। পদ্মাসেতুতে ট্রেন চালাতে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেলপথের নির্মাণকাজ চলছে। এ প্রকল্পের পরিকল্পনা অনুযায়ী, সেতু উদ্বোধনের দিন মাওয়া থেকে পদ্মাসেতু হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ট্রেন চলবে। এর জন্য সেতুতে রেললাইন স্থাপন করতে হবে।

পদ্মাসেতু এবং রেল সংযোগ- দুটিই সরকারের অগ্রাধিকারের প্রকল্প। কিন্তু কারিগরি কারণে কিছু জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। গত আগস্টে রেল সংযোগ প্রকল্পের ভায়াডাক্ট (উড়াল অংশ) নির্মাণের কাজ আটকে দেয় সেতু কর্তৃপক্ষ (বিবিএ)। মাওয়া এবং জাজিরায়, পদ্মাসেতুর দুই প্রান্তেই সংযোগ সড়ক থেকে যানবাহন ওঠার পথে রেলের ভায়াডাক্টের উচ্চতা এবং প্রশস্ততা নকশার চেয়ে কম বলে অভিযোগ করে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে পদ্মাসেতু প্রকল্পের কর্মকর্তারা বলেন, মাওয়া প্রান্তে রেল সংযোগের ভায়াডাক্টের ১৪ এবং ১৫ নম্বর পিয়ায়ের (পিলার) মধ্যে দূরত্ব ১১ দশমিক ৫ মিটার। নকশা অনুযায়ী থাকার কথা অন্তত ১৫ মিটার। এই দুই পিয়ারের নিচ দিয়ে নির্মিত সড়ক দিয়ে গাড়ি উঠবে পদ্মাসেতুতে। কিন্তু পিয়ার দুটির ওপরের ভায়াডাক্টের উচ্চতাও কম। থাকার কথা ছিল ৫ দশমিক ৭ মিটার। রয়েছে ৪ দশমিক ৮ মিটার। এতে লরি, কাভার্ডভ্যানের মতো বড় গাড়ি আটকে যাবে। একই সমস্যা জাজিরা প্রান্তেও।

সেতু কর্তৃপক্ষের অভিযোগ অনুযায়ী, সেখানে রেল সংযোগের ২৫ (১) এবং ২৫ (২) পিয়ারের মাঝে ১৫ মিটার জায়গা থাকার কথা ছিল। কিন্তু রয়েছে ৯ দশমিক ৬৫ মিটার। তবে রেল বলছে, ১১ দশমিক ৫ মিটার জায়গা আছে। সেখানেও ভায়াডাক্টের উচ্চতা কম। আন্তর্জাতিক মাপ অনুযায়ী ভায়াডাক্টের মধ্যে প্রস্থে ১৫ মিটার এবং উচ্চতায় ছয় মিটার জায়গা থাকার কথা। এ বিতর্কে প্রায় ছয় মাস সেতু এলাকায় রেল সংযোগ প্রকল্পের কাজ আটকে থাকে। সম্প্রতি দুই প্রকল্পের নকশা সমন্বয় করে রেলের ভায়াডাক্টের পাইল স্থানান্তর এবং সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

তাওহীদুল ইসলাম আমাদের সময়,

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন ||

আরও সংবাদ ||

                            @  SOMOYBNGLAR # কোনো লেখাছবিভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য

.