1. rezaulalam000@gmail.com : সময় বাংলার :
  2. jmitsolution24@gmail.com : JM IT SOLUTION : JM IT SOLUTION
মুন্সিগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ। | সময় বাংলার
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম ... ||
আগামী ২০ জুলাই নতুন ভাষানচর জুনিয়র ফুটবল টুর্ণামেন্ট ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে শ্রীনগরে ব্র্যাকের ইউনিয়ন  কর্মশালা সময় বাংলার “অন লাইন পোর্টালে খবর প্রকাশের পর ড্রেজার উচ্ছেদ দুই লাখ টাকা জরিমানা মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলেন মুজাহিদুল ইসলাম সিরাজদিখানে বদলিজনিত বিদায় উপলক্ষে সংবর্ধনা ঢাকা-বেইজিং চুক্তি স্বাক্ষরের একটি মুন্সিগঞ্জের নাটেশ্বর আর্কিওলজিকাল সাইট পার্ক প্রকল্প শ্রীনগরে অনূর্ধ্ব-১৭ জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত রাজশাহীর বাগমারায় অনলাইন জুয়ার কালো থাবায় নিঃস্ব হচ্ছে তরুণ-যুব সমাজ জাসদ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা শফিউর রহমান শফির মুক্তি দাবী রাজশাহীতে বিক্ষোভ শ্রীনগরে যাত্রীবাহী সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নতুন শাখা উদ্ধোধন পাবনায় উপজেলা আ.লীগ সম্পাদকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার প্রতিবাদে অবরোধ বিক্ষোভ -মানববন্ধন সারা দেশে চলমান আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা শিক্ষার্থীদের শ্রীনগরে ড্রেজার দিয়ে কৃষি জমি ভরাটের মহোৎসব  সিরাজদিখানে দুই পক্ষের সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধ ৯ আহত ২০ প্রশ্নফাঁসে নিজের সংশ্লিষ্টতা থাকলে পদত্যাগ করার ঘোষণা দিয়েছেন পিএসসি চেয়ারম্যান বুধবার সারাদেশে ‘বাংলা ব্লকেড’ সিরিয়াল কিলার রসু খাঁর ফাঁসির আদেশ বহাল দুর্নীতি একটি দেশের এগিয়ে যাওয়ার পথে সবচেয়ে বড় অন্তরায় কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে শুনানি আগামীকাল প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন টঙ্গীবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা কোটা বাতিলের দাবিতে উত্তাল সারাদেশ শ্রীনগরে সনাতন ধর্মালম্বীদের মহোৎসব রথযাত্রা অনুষ্ঠিত সাংবাদিক আলামিন হোসেনের পিতার মৃত্যুতে রাসিক মেয়রের শোক প্রকাশ শ্রীনগরে সাংবাদিকের উপর হামলা ও মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদে মানববন্ধন পদ্মা সেতুর জন্য বাংলাদেশ বিশ্বে সম্মান পেয়েছে : প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করছেন ‍ঋষি সুনাক স্ট্রোক করেছেন নাফিস ইকবাল,এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে আনা হচ্ছে ঢাকায় কিয়ার স্টারমার যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে লেবার পার্টির নিরঙ্কুশ জয়

মুন্সিগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ।

  • সময় বাংলার || সোমবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২৩, ৯.৫৯ এএম
হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ।
হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ।

মুন্সিগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ।


রুবেল ইসলাম তাহমিদ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট – সময় বাংলার। 
বাঙালি জাতীর পরিচয় মাছে-ভাতে বাঙালি ছিল এক সময় প্রবাদ। সে সময় ছিল বাংলার নানা ঐহিত্য, যেগুলো গ্রাম বাংলাকে করেছিল সমৃদ্ধ। কালের বিবর্তনে এখন গ্রাম বাংলার বহু ঐতিহ্য বিলুপ্ত হয়ে গেছে। আরও বহু ঐতিহ্য বিলুপ্তির পথে। এমনই এক ঐতিহ্যবাহী খাবারের তালিকা ছিল খেজুরের রস ও খেজুরের মিঠাই (গুড়)। খেজুর রসের ফিরনি ও খির কে না ভালোবাসে। মুন্সিগঞ্জ জেলাব্যাপী এমন কোনো বাড়ি বা রাস্তা ছিল না যেখানে অন্তত দু’একশটি খেজুর গাছ ছিল না। বাংলা পঞ্জিকার কার্তিক থেকে মাঘ পর্যন্ত প্রতি বাড়ির দু’একজন মধ্য বয়সী মানুষ খেজুর গাছ কেটে রস সংগ্রহের কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখত।photu mawa munshiganj 1
যারা খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করত, স্থানীয় ভাষায় তাদের গাছি বলা হয়। গাছিরা দিনের মধ্যভাগ থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ধারাল দা, মুগির আর রস সংগ্রহের হাঁড়ি ও পিঠের পেছনে একটি লম্বা ঝুড়িতে বেঁধে এ বাড়ি থেকে অন্য বাড়ি বয়ে নিয়ে যেত খেজুর গাছ কাটার জন্য।
এ কাজে গাছিদের বাড়ির ছোট ছেলে-মেয়েরা সাহায্য করত পেছনে পেছনে হাঁড়ি বহন করে। আবার খুব ভোর থেকে রস সংগ্রহ করে খেজুর গুড় তৈরির জন্য একত্রিত করত। সকাল থেকে দিনের অর্ধবেলা পর্যন্ত মা-বোনেরা রস থেকে গুড় তৈরি করত। আবার অনেক গাছি কুয়াশার ভেতরেই গ্রামীণ পথ ধরে কাঁধে রসের ভার বহন করে হেঁটে চলত রস বিক্রির আশায়। দিনের বেলায় পাখিরা রসের চুঙ্গিতে বসে মনের সুখে রস খেয়ে সিষ বাজিয়ে উড়ে যেত। মৌমাছিও রসের আশায় ভোঁ ভোঁ করে উড়ে বেড়াত। সে দৃশ্য দেখে সত্যিই চোখ জুড়িয়ে যেত সবার। প্রতি বাড়িতে সকাল বেলা খেজুর রসের পায়েস তৈরি হতো। এখন অন্য জেলা থেকে মাঝেমধ্যে খেজুর রসের ভার নিয়ে রস বিক্রি করতে এলেও চাহিদা বেশি থাকায় দামও বেশি। ছোট একটি রসের হাঁড়ির দাম ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। এ সম্পর্কে মেদিনী মন্ডল চেয়ারম্যন আওয়ামী নেতা আশরাফ হোসেন ও শেখ জামান বলেন, এ সময় খেজুর রস নেই এ কথাটি বিশ্বাস করতে পারছি না।

photu mawa munshiganj 4

উপজেলার ও লৌহজংয়ে বেশ কয়টি গ্রামের, রস জেলা শহরে যেত। কিন্তু এখন আমরাই রস পাচ্ছি না। ছোট বাচ্চারা তো রস চিনেই না। সেই ঐতিহ্য হারাচ্ছে এবং হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী খেজুরের গুড়। প্রচার-প্রচারণা না থাকলেও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গুড়ের কদর এবং চাহিদা রয়েছে যথেষ্ঠ। মেম্বার চান মিঞা বলেন, পাটালি গুড় ভাঙলে কাচা রসের মদিরা গন্ধ এবং লাল-খয়েরী স্ফটিকের মতো রঙ আর অতুলনীয় স্বাদ,এই ছিল মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ের পাটালি গুড়ের আদি আকর্ষণ। ঠিকই কিন্তু তাঁর বিখ্যাত ‘রস’ গল্পে নয় তো গুড় নামে ভিন্ন কোনো গল্প লিখতেন লেখক রা ভৌগলিক আয়তন, ব্যবসায়িক মনোভাব এবং প্রচারের কারণে প্রাচীনকাল থেকেই বৃহত্তর মুন্সিগঞ্জ অঞ্চলের বিষেশ করে লৌহজং- শ্রীনগরে, খেজুরের গুড়ের খ্যাতি ও যশ চারদিকে ছড়িয়েছে। সে তুলনায় মুন্সিগঞ্জের গুড়ের কিছুই হয়নি। গুড়ের ধারে-কাছে নেই দেশের অন্য সব অঞ্চলের গুড়। মাত্র বিশ থেকে পঁচিশ বছর আগেও সমগ্র মুন্সিগঞ্জের জেলার প্রায় সর্বত্রই মাঠে, ক্ষেতের আইলে, বড় রাস্তায় ধারে, পুকুর পাড়ে, ঝোপ-ঝাড়ে, বাড়ির আঙিনায় খেজুর গাছ দেখা যেত। বছর জুড়ে অবহেলা অযতেœ পড়ে থাকলেও শীতের শুরু অর্থাৎ পৌষের শুরুথেকে চৈত্রের শেষ পর্যন্ত চলত গাছের বিশেষ যতœ, রস সংগ্রহ আর সেই রস জ্বাল দিয়ে বানানো হতো লোভনীয় গুড়। সেই রামও নেই সেই অযোদ্ধাও নেই। কালেরর বিবর্তনে আজ সে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। নির্বিচারে গাছকাটা, নতুন করে গাছ না লাগানো, তাছাড়া নতুন প্রজন্মের মধ্যে কষ্ট করার মানসিকতা না থাকায় এখন আর আগের মতো সেই গুড় তৈরি হচ্ছে না।
খেজুরের গুড় আখের গুড়ের মতো মেশিনে বানানো সম্ভব নয়।এটা অতি যতেœর সথে সময় নিয়ে হাতে তৈরি করতে হয়। এটা একটা শিল্প,এটা সবাই পারে না।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন ||

আরও সংবাদ ||

                            @  SOMOYBNGLAR # কোনো লেখাছবিভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য

.